জুম এর মাধ্যমে কিভাবে পেমেন্ট রিসিভ করবেন ?

জুম হলো পেপালের মালিকানাধীন একটি মানি ট্রান্সফার সার্ভিস যেটি ব্যবহার করে ইউএসএ থেকে অন্যান্য দেশে টাকা পাঠানো যায়। এটি বর্তমানে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সারদের ইউএস ক্লায়েন্টের কাছ থেকে পেমেন্ট রিসিভ করার জন্য অন্যতম একটা অপশন। জুম ইউজ করে খুব সহজেই টাকা রিসিভ করা যায়।

তবে এটা প্রথমবার ব্যবহারের ক্ষেত্রে অধিকাংশ মানুষই কনফিউশনে পড়ে যায় কিভাবে কি করবে। কিছুক্ষন রিসার্চ করে সেটার সমাধানও করে ফেলা সম্ভব। তবু বোঝার কাজটা সহজ করার জন্য এই লেখা। এখানে মুলত কিছু অত্যন্ত কমন প্রশ্নের উত্তর দিবো, এছাড়া ভিডিও দেয়া আছে যেখানে সম্পূর্ন জিনিসটা ভালোভাবে বলা আছে। ভিডিও দেখলে নিচের দিকে আর পড়ার দরকার হবে না।

ভিডিও দেখার ধৈর্য নেই নাকি জানার আগ্রহ বেশি ? 😛

যেটাই হোক, এবার কিছু প্রশ্ন দেখে নেয়া যাক…

১। পেমেন্ট রিসিভ করার জন্য আমার জুম একাউন্ট থাকা লাগবে ?

উত্তরঃ না, পেমেন্ট রিসিভ করার জন্য কোন একাউন্ট দরকার নেই, শুধুমাত্র সেন্ড করার জন্য ক্লায়েন্টের একাউন্ট থাকতে হবে।

২। ইউএস ছাড়া অন্য দেশ থেকে পেমেন্ট পাঠাতে পারবে ক্লায়েন্ট ?

উত্তরঃ না, জুমের মাধ্যমে শুধুমাত্র ইউএসএ থেকে পেমেন্ট পাঠানো যায়।

৩। চার্জ কেমন ?

উত্তরঃ ১০০০ ডলার পর্যন্ত ৪.৯৯ ডলার এবং ১০০০ এর বেশি হলে ফ্রি!

৪। আমি কিভাবে টাকা পাবো ?

উত্তরঃ জুমে ২ টা অপশন আছে, ক্যাশ পিকয়াপ এবং ব্যাংক ডিপোজিট। ক্যাশ পিকয়াপের মাধ্যমে নিতে চাইলে আপনার নিকটস্থ ক্যাশ পয়েন্ট থেকে ক্যাশ কালেক্ট করতে পারবেন। ক্যাশ পয়েন্টের লিস্ট জুমের ওয়েবসাইটে পাবেন।

ব্যাংক ডিপোজিট অপশনের ক্ষেত্রে আপনার ব্যাংক ডিটেইলস আপনি ক্লায়েন্টের কাছে সেন্ড করবেন। ক্লায়েন্ট জুমে লগইন করে সেসব ডিটেইলস দিয়ে পেমেন্ট করলে ২-৩ দিনের মধ্যেই আপনার একাউন্টে টাকা জমা হয়ে যাবে। কি কি ইনফরমেশন দিতে হবে সেটা ভিডিওতে দেখে নিন -_-

৫। রেমিট্যান্স সার্টিফিকেট কিভাবে পাবো ?

উত্তরঃ আমি ফরেন এক্সচেঞ্জ ব্রাঞ্চ এর রেমিট্যান্স ডিপার্ট্মেন্টে ট্রাঞ্জেকশন লিস্ট জমা দেয়ার পর তারা দিয়েছিলো রেমিট্যান্স সার্টিফিকেট।

এ প্রশ্নগুলোই মোটামুটি পাওয়া যায়। এর বাইরে যেকোন প্রশ্ন থাকলে করে ফেলুন, আমিও চেষ্টা করবো যতটুকু সম্ভব উত্তর দেয়ার।

ধন্যবাদ।

শেয়ার করুন

You Might Also Like

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।